বেজায় চটেছেন কামাল-রব

বিএনপির জামায়াতপ্রেমে তুমুলভাবে ক্ষুব্ধ ড. কামাল ও রব গং। জামায়াতকে ‘অতিমূল্যায়ন’ করা বিএনপি ঐক্যফ্রন্টকে করেছে অবমূল্যায়ন। জামায়াতকে ২৫ টি আসনে মনোনয়ন দেয়া হলেও অনেকগুলো দলের সমন্বয়ে গঠিত ঐক্যফ্রন্টকে দেয়া হয়েছে মাত্র ১৮ টি আসন। এ বৈষম্য নিয়ে কর্মীদের কটুকথাও শুনতে হচ্ছে ঐক্যফ্রন্টের নেতাদের। জোট গঠন করে বিএনপি-জামায়াতের কাছে এভাবে অপদস্থ হবার যৌক্তিকতা খুঁজে পাচ্ছেন না কর্মীরা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ঐক্যফ্রন্ট কর্মী বলেন  ‘এরচেয়ে বরং আমাদের ‘একলা চলো’ নীতিই ভালো ছিল। ক্ষমতায় যেতে স্বাধীনতাবিরোধী-দুর্নীতিবাজদের সাথে জোট করাকে মেনে নিয়েছিলাম। কিন্তু আমাদের যে কয়টা আসনে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে, তা ডেকে এনে অপমানের শামিল’।

কর্মীদের কটুকথা হজম করতে হচ্ছে শীর্ষ নেতাদেরও। তাই সব দেখেশুনে এবার বেজায় চটেছেন ড. কামাল ও আসম রব। তারা নিজেদেরকে প্রতারিত ভাবছেন।

কামাল ও রব অনেক অমীমাংসিত ইস্যুকে পাশ কাটিয়েই বিএনপির পাশে ছিলেন। যদিওবা তারা বারবার বলেছিলেন, জামায়াতের সাথে কোন ঐক্য নয়। কিন্তু তাদের সে কথা ফাঁপা বুলি হিসেবে প্রমাণিত হয়েছে। জোট গঠনের ফলে বিএনপি জমায়াতের সকল কুকর্মের দায়ও বর্তেছে তাদের উপর। তবুও স্রেফ ক্ষমতার লোভে চুপ ছিলেন তারা।

কিন্তু ক্রমাগত অবমূল্যায়ন ও কর্মীদের টিপ্পনীতে এবার মুখ খুলেছেন কামাল-রব। তাদের ঘনিষ্ঠ সূত্র জানায়, বিএনপির কাছে তারা তাদের ক্ষোভের কথা জানিয়েছেন ইতোমধ্যে। দাবি করেছেন, কমপক্ষে ২৫ টি আসন বরাদ্দের ও সকল অমীমাংসিত ইস্যু সমাধানের। অন্যথায় চরমপন্থা অবলম্বনের হুমকিও দিয়েছেন তারা। তাদের সেই চরমপন্থা যে ‘জোটত্যাগ’, সেকথা বলাই বাহুল্য।

তাই বলা চলে, ক্রমেই ঐক্যফ্রন্ট অবধারিত ভাঙনের দিকে যাচ্ছে, যা পূর্বেই আশঙ্কা করা হয়েছিলো।