তরুণদের নিজের চড়াই উতরাই আর আগামীর বাংলাদেশের গল্প শোনালেন শেখ হাসিনা

 

 

গ্রামের দুরন্ত কিশোরীটি আজ বাংলাদেশের তিনবারের সফল প্রধানমন্ত্রী। পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাঙালির অবিসংবাদিত নেতা। বঙ্গবন্ধু বাঙালিকে এনে দিয়েছেন স্বাধীনতা আর তাঁরই কন্যা শেখ হাসিনা আজ বাঙালির স্বপ্নসারথী। পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা বাস্তববায়নে দুর্গম সেই পথ পাড়ি দিতে বহু চড়াই-উৎরাই পাড়ি দিতে হয়েছে বঙ্গবন্ধু কন্যাকে।

গতকাল সেইসব গল্পই শোনালেন তিনি। ঢাকার একটি মিলনায়তনে ওই অনুষ্ঠানে পেশাজীবী, উদ্যোক্তা ও শিক্ষার্থীসহ দেড়শ তরুণ-তরুণীর মুখোমুখি হয়ে তাদের নানা প্রশ্নের জবাব দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ সময় নিজের জীবনের নানা অজানা কথা প্রকাশ্যে আনেন তিনি। ভবিষ্যতে দেশ পরিচালনা নিয়ে তরুণদের ভাবনাও শোনেন।

সেন্টার ফর রিসার্স অ্যান্ড ইনফরমেশন (সিআরআই) আয়োজিত ‘লেটস টক’ শিরোণামের এই অনুষ্ঠানে প্রথমবারের মতো তরুণদের মুখোমুখি হন শেখ হাসিনা। এদিন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তাঁর শৈশব, তারুণ্য,সংগ্রাম-সাফল্য ও যাপিত জীবনের নানা দিক নিয়ে খোলামেলা আলোচনা করেন।

শেখ হাসিনা বলেন ‘এই বাংলাদেশ আমার বাবা স্বাধীন করে গেছেন। এই বাংলাদেশের মানুষগুলো দরিদ্র, দুঃখী। তাদের জন্য আমার কিছু করতেই হবে। এখনো আমি আওয়ামী লীগের একজন সার্বক্ষণিক কর্মী। আর প্রধানমন্ত্রী হবার পর মনে করি, আমি বাংলাদেশ প্রজাতন্ত্রের একজন কর্মী। আর যখন ভালো কিছু করতে পারি দেশের জন্য, তখন মনে হয় আব্বা দেখছেন। ভয় পাইনি কখনো, আর ভয় পাবও না, মৃত্যুকে আলিঙ্গন করার জন্য সর্বদা প্রস্তুত।”

সিআরআইর ট্রাস্টি রাদওয়ান মুজিব সিদ্দিক ববি ও নসরুল হামিদ বিপু এ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।