ধানের শীষে ভোট চাইতে গিয়ে ডাকাতি, জনমনে আতঙ্ক!

 

নিউজ ডেস্ক: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রাক্কালে আবারও বেপরোয়া হয়ে উঠেছে বিএনপি নেতাকর্মীরা। তারা একের পর এক হামলা চালাচ্ছে। ভাঙছে নির্বাচনী অফিস। এমন প্রেক্ষাপটে বিএনপি নেতাকর্মীদের নতুন তৎপরতা সামনে এসেছে। ধানের শীষে ভোট চাইতে এসে ডাকাতিও করছে তারা। ভুক্তভোগীরা বলছেন, নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থীদের হয়ে ভোট চাইতে এসে তাদের সমর্থকরা অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে নিয়ে যাচ্ছে নগদ অর্থ, স্বর্ণালঙ্কারের মত মূল্যবান সম্পদ। এ নিয়ে জনমনে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।

ভুক্তভোগীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, ১৮ ডিসেম্বর নোয়াখালী-২ আসনের মাইজদিতে স্থানীয় জাফর মাস্টারের বাড়িতে সন্ধ্যায় স্থানীয় বিএনপির প্রার্থীর সমর্থকরা ধানের শীষে ভোট চাইতে আসে। একপর্যায়ে তারা পানি খাওয়ার কথা বলে ঘরে প্রবেশ করে এবং অস্ত্রের মুখে সবাইকে জিম্মি করে নগদ অর্থ, স্বর্ণালঙ্কার এবং মূল্যবান জিনিস নিয়ে যায়।

নোয়াখালী-২ আসনের বিএনপি প্রার্থী মাহবুব উদ্দিন খোকন। অতিসম্প্রতি তার একটি অডিও ফোনালাপ ফাঁস হয়েছে, যাতে তিনি বিএনপি নেতাকর্মীদের লাঠিসোঁটা নিয়ে নাশকতার জন্য প্রস্তুত থাকতে বলেছেন। স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন, এই আসনের বিএনপি প্রার্থী খোকন তার কর্মীদের সরাসরি সহিংসতার উস্কানি দিয়েছেন বলেই বিএনপি নেতাকর্মীরা এভাবে বেপরোয়া হয়ে উঠছে। যার বহিঃপ্রকাশ ঘটছে ডাকাতির মাধ্যমে।

এদিকে ২০ ডিসেম্বর কুমিল্লা-৩ আসনের মুরাদনগরেও ঘটেছে একই ঘটনা। এই আসনে বিএনপির মনোনীত প্রার্থী কে এম মজিবুল হক। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ২০ ডিসেম্বর রাতে মুরাদনগরের বশির মিয়ার বাড়িতে ধানের শীষে ভোট চাইতে আসেন বিএনপি প্রার্থীর নেতাকর্মীরা। একপর্যায়ে হাতমুখ ধোয়ার কথা বলে বাড়িতে প্রবেশ করে সবাইকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে নগদ টাকাপয়সা, স্বর্ণালঙ্কার লুট করে পালিয়ে যায় তারা।

এ বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে কথা বললে জানা গেছে, তারা এ ধরণের একাধিক অভিযোগ পেয়েছেন। এমন তৎপরতায় জড়িতরা ধানের শীষে ভোট চাইতে এসে অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে ডাকাতি করছেন।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর এক কর্মকর্তা জানান, ‘এটি পেশাদার ডাকাত দলের কাজ নয়। নির্বাচনকে সামনে রেখে একটি রাজনৈতিক দল বেশ কয়েকটি লক্ষ্য সামনে রেখে এই কাজে নেমেছে। তাদের প্রধান লক্ষ্য ডাকাতির মাধ্যমে নির্বাচনের তহবিল সংগ্রহের পাশাপাশি তারা চাইছে দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি খারাপ প্রমাণিত করে জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টি করতে।’

তাদের ব্যাপারে কোন তথ্য পুলিশের হাতে আছে কিনা জানতে চাইলে বলেন, ‘আমরা তাদের আইডেন্টিফাই করতে পেরেছি। এমন নির্দেশ আসছে সরাসরি লন্ডন থেকে। এ ব্যাপারে নির্দেশনামূলক ফোনালাপ ইতিমধ্যেই আমাদের হাতে এসে পৌঁছেছে। আমরা খুব শীঘ্রই এদের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নিয়ে তাদের শাস্তি নিশ্চিত করবো।’

এদিকে নির্বাচনের ঠিক আগে ধানের শীষের সমর্থকদের এমন লজ্জাজনক কর্মকাণ্ড দলটির প্রতি সাধারণ ভোটারদের খেপিয়ে তুলছে। সহানুভূতির বদলে ঘৃণা ও ধিক্কার জানাচ্ছে ভুক্তভোগীরা যার প্রভাব পড়বে নির্বাচনী ফলাফলে।