ফখরুল বাদ, মহাসচিব হচ্ছেন ড. কামাল

 

 

নিউজ ডেস্ক: একযুগেরও বেশি সময় ধরে ক্ষমতার বাইরে থাকার কারণে বিএনপি রাজনীতিতে অনেকটা নেতিয়ে পড়েছে। এছাড়াও উপযুক্ত নেতৃত্বের অভাবে রাজপথের রাজনীতিতে টিকতে পারছে না তারা। যার কারণে অস্তিত্ব সংকটে পড়া বিএনপির বর্তমান মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে বাদ দিয়ে দলের সকল দায়িত্ব ড. কামালের উপরই ন্যস্ত হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

হয়তো এ কারণেই বিএনপির পুনর্গঠনে ড. কামাল হোসেনের পরামর্শ চাইছেন তারেক রহমান। ড. কামাল হোসেনের সঙ্গে বৃহস্পতিবার (২১ ফেব্রুয়ারি) টেলিফোনে কথা বলেছেন লন্ডনে পলাতক বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। উক্ত ফোনালাপে তারেক রহমান বিএনপির সকল দায়িত্ব ড. কামালকে নিতে বলেন। যার প্রমাণ পাওয়া যায় বিএনপির গণশুনানির দিন। ওই গণশুনানিতে সভাপতিত্ব করেন ড. কামাল হোসেন। এই গণশুনানির পরপরই মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের টেলিফোনে ফের ফোন করেন তারেক রহমান। তখন ড. কামাল হোসেনের সঙ্গে তিনি কথা বলেন।

একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র নিশ্চিত করেছে যে, বিএনপিকে পুনর্গঠন এবং বিএনপির মধ্যকার বিরোধ মীমাংসার জন্য ড. কামাল হোসেনকে তারেক মধ্যস্থতা করার দায়িত্ব দিয়েছেন। তিনি বিএনপির নেতৃবৃন্দদের নিয়ে বসে পরামর্শ দেওয়ার অনুরোধ করেছেন। তারেক রহমান ড. কামাল হোসেনকে বলেন, আপনি এখন বিএনপির অভিভাবক। আপনার হাতেই বিএনপিকে ন্যস্ত করলাম। আপনি যেভাবে ভালো বোঝেন, সেভাবেই বিএনপিকে গুছিয়ে তুলুন।

এদিকে ড. কামাল হোসেন বলেছেন, তিনি বিএনপির সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে খুব শিগগিরই বসবেন। বসে বিএনপি যেন সংগঠন হিসেবে শক্তিশালী হয়, সে বিষয়টি তিনি দেখবেন। এছাড়াও ড. কামাল হোসেনকে বেগম খালেদা জিয়ার মামলার ব্যাপারে পরামর্শ দেয়ার জন্য অনুরোধ করেন তারেক রহমান। ড. কামাল হোসেন অবশ্য এ ব্যাপারে কোন ইতিবাচক সাড়া দেননি। তিনি বলেছেন, যে আইনজীবীরা আছেন তারা মামলা দেখছেন।

সূত্র বলছে, ড. কামাল হোসেন অবিলম্বে তারেক রহমানকে জামায়াতের সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেওয়ার আহ্বান জানান। তারেক রহমান এতে নীতিগতভাবে রাজি হয়েছেন বলেও একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র নিশ্চিত করেছেন