জাতীয় পরিচয়পত্র হারিয়ে গেলে যা করবেন

 

বাংলাদেশের নাগরিক হিসেবে একজন মানুষের অন্যতম পরিচয় তাঁর জাতীয় পরিচয়পত্র। ব্যাংক হিসাব, পাসপোর্ট থেকে শুরু করে ড্রাইভিং লাইসেন্স করাসহ নানা কাজ এনআইডি ছাড়া হয় না। আর এর গুরুত্ব সম্পর্কে আমরা অনেকেই সচেতনও না। এমন অনেক নাগরিক আছেন যাঁদের এনআইডি কবে হারিয়ে গেছে তা তিনি নিজেও জানেন না। অথচ ওই হারানো এনআইডির জন্য তাঁর জীবনে যেকোনো সময় নেমে আসতে পারে ভয়াবহ বিপদ।

একবার ভাবুন তো, আপনার হারিয়ে যাওয়া জাতীয় পরিচয়পত্রটি যদি কোনো জঙ্গি সংগঠনের হাতে পড়ে থাকে, তাহলে কী অবস্থা হতে পারে আপনার! কোনো জঙ্গি অপরাধ সংঘটনের পর যদি আপনার পরিচয়পত্র ঘটনাস্থলে রেখে আসে? তাহলে আইনি জটিলতার শেষ নেই। যে কোনো সাধারণ অপরাধীরাও আপনার হারিয়ে যাওয়া আইডি কার্ড ব্যবহার করে অঘটন ঘটাতে পারে। তাই জাতীয় পরিচয়পত্র হারিয়ে গেলে সঙ্গে সঙ্গে থানায় গিয়ে সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করুন।

আবেদন করবেন কিভাবে : জাতীয় পরিচয়পত্র হারালে বা নষ্ট হলে সঙ্গে সঙ্গে নিকটতম থানায় জিডি করতে হবে। জিডির মূল কপিসহ সংশ্লিষ্ট উপজেলা-থানা নির্বাচন অফিসারের কার্যালয়ে অথবা ঢাকায় জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগে নির্বাচন কমিশন বাংলাদেশ ফরম-৬ পূরণ করে আবেদন করতে হবে।

ফি কত লাগবে : ১ সেপ্টেম্বর-২০১৫ হতে হারালে বা নষ্ট হলে ফি নির্ধারণ করা হয়। এর আগে কোনো ফি ছাড়াই জাতীয় পরিচয়পত্র তোলা যেত। প্রথমবার আবেদনের ক্ষেত্রে সাধারণ ৩০ কর্ম দিবসের মধ্যে ২০০ টাকা ও জরুরি সাত কর্ম দিবসের মধ্যে পেতে হলে ৩০০ টাকা দিতে হবে।

একইভাবে দ্বিতীয়বার আবেদনের জন্য ৩০০ টাকা ও ৫০০ টাকা এবং পরবর্তীতে যে কোনো বার ৫০০ টাকা, ১০০০ টাকা জমা দিতে হবে। প্রত্যেকবার জমা দেয়ার সময় শতকরা ১৫ ভাগ ভ্যাট দিতে হবে।

ফি বা চার্জ ট্রেজারি চালানের মাধ্যমে অথবা ‘সচিব নির্বাচন কমিশন সচিবালয়’-এর অনুকূলে পে-অর্ডার বা ব্যাংক ড্রাফটের মাধ্যমে (ভ্যাটসহ) পরিশোধ করতে হবে।

নির্ধারিত ফিসমূহ বাংলাদেশ ব্যাংকের যে কোনো শাখায় ও সোনালী ব্যাংকের ট্রেজারি শাখাসমূহে জাতীয় পরিচয়পত্র ফি কোড নং-১-০৬০১-০০০১-১৮৪৭ ও ১৫ ভাগ হারে মূল্য সংযোজন কর এবং অর্থনৈতিক কোড নং-১-১১৩৩-০০০০-০৩১১ তে জমা দিতে হবে। মূল্য সংযোজন কর দেয়ার ক্ষেত্রে ০০০০ এর স্থলে ঢাকা (পূর্ব)-০০৩০, ঢাকা (দক্ষিণ)-০০১০,ঢাকা (উত্তর)-০০১৫, ঢাকা (পশ্চিম)-০০৩৫,কুমিল্লা-০০৪০, রংপুর-০০৪৫, রাজশাহী-০০২০,যশোর-০০০৫, চট্টগ্রাম-০০২৫, সিলেট-০০১৮,খুলনা-০০০১ এভাবে লিখতে হবে।