বিএনপির ৩ জেলার আহ্বায়ক কমিটিতে পদ বাণিজ্যের অভিযোগ, অসন্তোষ চরমে!

নিউজ ডেস্ক: বর্তমান কমিটি বিলুপ্ত করে রাজশাহী, নাটোর ও পাবনায় আহ্বায়ক কমিটি অনুমোদন দিয়েছে বিএনপি। শুক্রবার (৫ জুলাই) বিএনপির কেন্দ্রীয় সহ-দফতর সম্পাদক মুহাম্মদ মনির হোসেন স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এদিকে, তিন জেলার নতুন আহ্বায়ক কমিটিতে স্বজনপ্রীতি, পদ বাণিজ্য, অযোগ্যদের অতিরিক্ত মূল্যায়নের মতো গুরুতর অভিযোগ পাওয়া গেছে। পদবঞ্চিত নেতারা বলছেন, অর্থের কাছে এই তিন জেলায় বিএনপির রাজনীতি পরাজিত হয়েছে। এই ইস্যুতে দলটির নৈতিক পরাজয় ঘটেছে।

এ বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে রাজশাহী জেলা বিএনপির পদবঞ্চিত নেতা মতিউর রহমান মন্টু বলেন, রাজশাহীতে বিএনপির রাজনীতির নৈতিক পরাজয় ঘটলো এই আহ্বায়ক কমিটির মাধ্যমে। দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদের অনুগত ও পৃষ্ঠপোষকদের এই কমিটিতে মূল্যায়ন করা হয়েছে। অথচ কোনো আন্দোলনেই এসব হাইব্রিড নেতাদের মাঠে থাকার প্রমাণ নেই। এ নিয়ে তৃণমূলে ব্যাপক ক্ষোভ ও হতাশার সঞ্চার হয়েছে। বর্তমান জেলা আহ্বায়ক কমিটির অধিকাংশ নেতা বিতর্কিত, কর্মী বিচ্ছিন্ন ও বিএনপির রাজনীতিতে অপরিচিত মুখ। এই কমিটি ঘোষণার ফলে দলের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হয়েছে।

একইরকম ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন পাবনা জেলা বিএনপির পদবঞ্চিত ও পরীক্ষিত নেতা হাবিবুর রহমান তোতা। সদ্য বিলুপ্ত জেলা কমিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক তোতা ক্ষোভ নিয়ে বলেন, যারা কেন্দ্রীয় নেতাদের তোষণ করতে পারেন, তারাই এই কমিটিতে জায়গা পেয়েছেন। অথচ পরীক্ষিত, নন্দিত ও জনপ্রিয় নেতাদের আহ্বায়ক কমিটিতে স্থান দেয়া হয়নি। এটি এক ধরণের অন্যায়-অবিচার।

তিনি আরো বলেন, এরূপ বিতর্কিত সমন্বয়হীন কমিটি দলের মধ্যে দীর্ঘমেয়াদী বিভেদ, অস্থিরতা, অচলাবস্থার সৃষ্টি করবে। আমি স্পষ্ট করে বলতে চাই, অচিরেই লোক দেখানো এই আহ্বায়ক কমিটি বাতিল না করা হলে গণ-পদত্যাগের ঘোষণা আসবে।

এদিকে নাটোর জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটি নিয়েও অসন্তোষের খবর পাওয়া গেছে। জানা গেছে, অচিরেই পরীক্ষিত ও ত্যাগী নেতাদের সমন্বয়ে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা না হলে জেলা কার্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে দেয়ারও হুমকি দিয়েছেন পদবঞ্চিতরা।