স্বপ্ন দেখাচ্ছে চট্টগ্রাম এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে

 

চট্টগ্রাম নগরে যাতায়াতের প্রধান সড়ক ২৫ কিলোমিটারের শাহ্ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর-পতেঙ্গা সমুদ্রসৈকত থেকে কালুরঘাট সড়ক। এ সড়ক দিয়ে বিমানবন্দর যেতে সময় লাগে দুই থেকে আড়াই ঘণ্টা। যানজটে পড়ে বিমানের ফ্লাইট মিস করার দৃষ্টান্তও আছে। কিন্তু চট্টগ্রাম এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে নির্মিত হলে বিমানবন্দরে পৌঁছা যাবে মাত্র ৩০ মিনিটে। চট্টগ্রামের যাতায়াতে স্বপ্ন দেখাচ্ছে এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়েটি। সময়ও বাঁচাবে দুই ঘণ্টা। বাড়বে বিদেশি বিনিয়োগ। যানজট কমবে নগরে। বিকশিত হবে পর্যটন খাত। চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (চউক) নগরের বৃহত্তম এ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে। চউক সূত্রে জানা যায়, ২০১৭ সালের ১১ জুলাই জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় ৩ হাজার ২৫০ কোটি ৮৩ লাখ টাকা ব্যয়ের প্রকল্পটি অনুমোদন দেওয়া হয়। ২০১৯ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্মাণকাজের উদ্বোধন করেন। লালখান বাজার থেকে বারিক বিল্ডিং, বারিকবিল্ডিং মোড় থেকে সল্টগোলা ক্রসিং, সল্টগোলা থেকে সিমেন্টক্রসিং এবং সিমেন্টক্রসিং থেকে সমুদ্রসৈকত পর্যন্ত চার ধাপে কাজ বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। সাড়ে ১৬ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যরে চার লেনের এ প্রকল্পে র‌্যাম্প ও লুপসহ এটির দৈর্ঘ্য প্রায় ২০ কিলোমিটার এবং প্রস্থ ৫৪ ফুট। প্রতিটি র‌্যাম্প হবে দুই লেনের। সিডিএর নির্বাহী প্রকৌশলী ও প্রকল্প পরিচালক মাহফুজুর রহমান বলেন, ‘এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের কাজ বর্তমানে দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে। লকডাউনের সময় কাজ কিছুদিন বন্ধ থাকলেও এখন যথানিয়মে কাজ চলছে। বর্তমানে কাজের অগ্রগতি ৩৫ শতাংশ। আগামী ২০২২ সালের জুন মাসের মধ্যে প্রকল্পের কাজ শেষ করার পরিকল্পনা নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছি।’ জুনিয়র চেম্বার ইন্টারন্যাশনাল (জেসিআই) চট্টগ্রামের সাবেক প্রেসিডেন্ট মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন বলেন, ‘ব্যাংকক, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, মুম্বাই ও কলকাতাসহ বিভিন্ন দেশে বিমানবন্দর কেন্দ্রিক পৃথক যোগাযোগ ব্যবস্থা আছে। বিলম্বে হলেও চট্টগ্রাম বিমানবন্দর কেন্দ্রিক এলিভেডেট এক্সপ্রেসওয়ে হচ্ছে। এখন আমাদের প্রাণের দাবি, অগ্রাধিকার ভিত্তিতে কাজের সর্বোচ্চ মান নিশ্চিত করে দ্রুত যাতে কাজটি শেষ করার। কারণ এটি বাস্তবায়ন হলে টানেল, ইকোনমিক জোনসহ বড় প্রকল্পের সুফল মিলবে। তাছাড়া, বর্তমানে বিমানবন্দরে যাওয়ার সড়কটিতে যানবাহন চলতে চায় না। যান চললেই নষ্ট হয় নানা যন্ত্রাংশ।’

তরুণ ব্যবসায়ী প্রকৌশলী ইশতিয়াক উর রহমান বলেন, ‘চট্টগ্রাম বিমানবন্দর থেকে শহরে প্রবেশ করতে দুই ঘণ্টার বেশি সময় লেগে যায়। সঙ্গে থাকে চরম ভোগান্তি। এই দুই ঘণ্টা আমাদের নষ্টই হয়। কিন্তু এই সময়টা বাঁচানো দরকার। আমরা চাই ৩০ মিনিটের মধ্যে শহরে প্রবেশ করতে। যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো হলে বিদেশি বিনিয়োগকারীরাও আকৃষ্ট হবে।’

 

প্রকল্প সূত্রে জানা যায়, এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের ৯টি এলাকায় ২৪টি র‌্যাম্প (গাড়ি ওঠানামার পথ) থাকবে। নগরীর টাইগারপাসে চারটি, আগ্রাবাদে চারটি, বারিক বিল্ডিং মোড়ে দুটি, নিমতলী মোড়ে দুটি, কাস্টমস মোড়ে দুটি, সিইপিজেডে চারটি, কেইপিজেডে দুটি, কাঠগড়ে দুটি, পতেঙ্গা সমুদ্রসৈকত এলাকায় দুটি র‌্যাম্প থাকবে। উড়াল সড়কের মতোই এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের ওপর দিয়ে যন্ত্রচালিত যান চলবে।