দু-তিন বছরে সড়কে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আসবে

 

আগামী ২ থেকে ৩ বছরের মধ্যে বাংলাদেশের সড়ক নেটওয়ার্কে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আসবে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, উন্নত বিশ্বের মতো বাংলাদেশেও নিরাপদ সড়ক নিশ্চিত করতে চালু হয়েছে রোড সেফটি অডিট।

ব্র্যাক ও বিশ্বব্যাংকের উদ্যোগে শনিবার নিরাপদ সড়ক দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। ‘রোড সেফটি কোলাবোরেশন, রিডিউসিং রোড ফ্যাটালিটিজ ফিফটি পারসেন্ট বাই টুয়েন্টি থার্টি’ শীর্ষক ভার্চুয়াল এ সভায় ওবায়দুল কাদের তার সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হন।

মন্ত্রী বলেন, নিরাপদ ও ভ্রমণবান্ধব সড়ক নেটওয়ার্ক গড়ে তোলা সরকারের অগ্রাধিকার। টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট এসডিজি অনুযায়ী সড়ক দুর্ঘটনা ৫০ ভাগ কমিয়ে আনার লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে এবং জাতিসংঘ ঘোষিত দ্বিতীয় বারের মতো ডিকেড অভ অ্যাকশন ফর রোড সেফটির লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে আইনগত কাঠামো শক্তিশালী করা হয়েছে। আন্তর্জাতিক এবং দেশীয় আইনগত কাঠামোর সঙ্গে সমন্বয় করে ন্যাশনাল রোড সেফটি স্ট্রাটেজিক অ্যাকশন প্ল্যান বাস্তবায়ন করছে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ।

সেতুমন্ত্রী বলেন, সরকার মহিলা গাড়িচালক তৈরির সুযোগ বাড়াচ্ছে। নারী গাড়িচালক তৈরির কার্যক্রম ব্র্যাক-ই প্রথম শুরু করে। গাড়ি চালনায় পুরুষদের তুলনায় নারীরা অধিক সাবধানী এবং ট্রাফিক আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই সরকার অধিকসংখ্যায় নারীচালকের সংখ্যা বাড়াতে চায়।

সড়ক দুর্ঘটনা রোধ তথা এর ফ্যাটালিটি রেট অর্ধেকে নামিয়ে আনার লক্ষ্যে বেসরকারি পর্যায়ে ব্র্যাক ও বিশ্বব্যাংকের এ যৌথ উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে তিনি বলেন, সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি উদ্যোগ যুক্ত হলে এসব সেক্টরে যে কোনো লক্ষ্য অর্জন সহজতর হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভাবনায় পরবর্তী নির্বাচন নয়, তার ভাবনায় পরবর্তী প্রজন্ম উল্লেখ করে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, শেখ হাসিনার স্বপ্ন সমৃদ্ধ ও উন্নত বাংলাদেশ বিনির্মাণ। তার ভাবনায় দেশ ও জনগণের সুরক্ষা। ১০০ বছর পর বাংলাদেশ কেমন হবে- সেজন্য প্রণয়ন করেছেন শতবর্ষী ‘ডেল্টা প্ল্যান’। এটাই শেখ হাসিনার নেতৃত্বের বিশেষত্ব। তার দৃষ্টি সম্ভাবনার দূরদিগন্তে।

ভার্চুয়াল প্ল্যাটফর্মে বিশ্বব্যাংকের অ্যাক্টিং কান্ট্রি ডিরেক্টর ফর বাংলাদেশ অ্যান্ড ভুটান দান্দান চেন, ব্র্যাকের নির্বাহী পরিচালক আসিফ সালেহ, ব্র্যাক রোড সেফটি প্রোগ্রাম পরিচালক আহমেদ নাজমুল হোসেইন, বিশ্বব্যাংকের সিনিয়র ট্রান্সপোর্ট স্পেশালিস্ট দীপন বোস প্রমুখ এ সময় অংশ নেন।

বিশ্বব্যাংকের ভারপ্রাপ্ত কান্ট্রি ডিরেক্টর বলেন, সড়ক নিরাপত্তা যে কোনো দেশের জন্য অর্থনৈতিক ও উন্নয়নের অগ্রাধিকারে পরিণত হয়েছে। একটি জাতীয় সড়ক সুরক্ষা কর্মসূচির মাধ্যমে সড়কের নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণে সরকারকে সহযোগিতা করতে পেরে আমরা গর্বিত।

ব্র্যাকের নির্বাহী পরিচালক আসিফ সালেহ বলেন, আশা করছি সরকার ও বিশ্বব্যাংকের সহায়তায় ব্র্যাকের এ কমিউনিটি রেড সেফটি মডেল সারা দেশে ছড়িয়ে যাবে।