স্বয়ংক্রিয় সেচযন্ত্র উদ্ভাবন

স্বয়ংক্রিয় সেচযন্ত্র উদ্ভাবন করেছেন সিলেট কৃষি বিশ^বিদ্যালয়ের (সিকৃবি) একদল গবেষক। দেশে প্রথমবারের মতো উদ্ভাবিত স্বয়ংক্রিয় সেচযন্ত্রের ফলে পানির অপচয় রোধের পাশাপাশি সময়মতো ফলবে সোনার ফসল। আধুনিক কৃষি যান্ত্রিকীকরণের মাধ্যমে সেচ ব্যবস্থাকে সহজ করে আবাদি জমিতে সঠিক মাত্রায় আর্দ্রতা বজায় রাখা সম্ভব হবে নতুন এই সেচযন্ত্রের মাধ্যমে। এর মাধ্যমে মাটির আর্দ্রতা এবং পানির উচ্চতা সহজে নির্ণয় করে মাঠে সেচ দেওয়া যাবে বলে জানান গবেষকরা।
কৃষি প্রকৌশল ও প্রযুক্তি অনুষদের ডিন এবং কৃষিশক্তি ও যন্ত্র বিভাগের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. মুহাম্মদ রাশেদ আল মামুন, সহকারী প্রফেসর মো. জানিবুল আলম সোয়েব, বিভাগের দুই শিক্ষার্থী মো. রাইসুল ইসলাম রাব্বী ও মো. নুরুল আজমীর এই প্রটোটাইপ ডিভাইস তৈরি করেছেন।
কৃষকের সেচের সমস্যা সমাধানে এই যন্ত্র গুরুত্বপূর্ণ ভ‚মিকা রাখবে বলে আশা করেন গবেষকরা। যন্ত্রটি তৈরি করতে তারা মাইক্রো কন্ট্রোলারে কম্পিউটার প্রোগ্রামিং ব্যবহার করেছেন। এ বিষয়ে প্রধান গবেষক ড. রাশেদ বলেন, এই যন্ত্র স্বয়ংক্রিয়ভাবে মাটির আর্দ্রতা নির্ণয় করতে সক্ষম বলে প্রয়োজন অনুযায়ী মাটির আর্দ্রতা ও পানির উচ্চতা পরিমাপ করে পাম্প সক্রিয়ভাবে চালু হবে এবং বন্ধ হবে যা কৃষককে পানি দেওয়ার সময় ও পরিমাণ নির্ধারণের দুশ্চিন্তা থেকে মুক্তি দেবে। পাশাপাশি ভিন্ন ভিন্ন শস্যের ক্ষেত্রে পানির চাহিদা অনুযায়ী ভিন্ন ভিন্ন আর্দ্রতা ও উচ্চতায় এই যন্ত্রের সুবিধা নেওয়া যাবে।
তিনি বলেন, এই ডিভাইস মাঠপর্যায়ে উপযোগী করে তুলতে পারলে সেচ ব্যবস্থার আমূল পরিবর্তন আনা সম্ভব হবে। ফলে কৃষক সময় সাশ্রয়ের পাশাপাশি আর্থিকভাবেও লাভবান হবে।