ওমরাহ পালনে বাধা কাটল বাংলাদেশিদের

আরও দুটি প্রতিষ্ঠানের তৈরি করোনাভাইরাসের টিকার অনুমোদন দিয়েছে সৌদি আরব। এগুলো হলো-সিনোভ্যাক ও সিনোফার্ম। চীনের এ দুটি প্রতিষ্ঠানের টিকা অনুমোদন পাওয়ায় টিকা গ্রহণকারী বাংলাদেশিদের ওমরাহ পালনে আর বাধা থাকল না।

আরব নিউজের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মঙ্গলবার সৌদি আরবের কর্তৃপক্ষ সিনোভ্যাক ও সিনোফার্মের টিকার অনুমোদন দেয়। এ নিয়ে দেশটিতে করোনার মোট ছয়টি টিকা অনুমোদন পেল। এর আগে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা, ফাইজার-বায়োএনটেক, জনসন অ্যান্ড জনসন ও মডার্নার টিকার অনুমোদন দিয়েছিল দেশটি।

১০ আগস্ট পূর্ণ ডোজ টিকা নেওয়া বিদেশি মুসল্লিদের কাছ থেকে পবিত্র ওমরাহ পালনের আবেদন নিতে শুরু করে সৌদি সরকার। সেসময় ঘোষণা দেওয়া হয়, ওই চারটির যে কোনোটির পূর্ণ ডোজ টিকা নেওয়া ব্যক্তিই কেবল আবেদন করতে পারবেন। কিন্তু বিশ্বের অনেক স্থানেই এ চারটির বাইরেও টিকা দেওয়া হচ্ছিল। বিশেষ করে মুসলিমপ্রধান দেশগুলোর বেশ কয়েকটি চীনের সিনোফার্মের টিকাও নাগরিকদের দিয়ে আসছিল। ফলে এ টিকা গ্রহণকারীরা ওমরাহ পালনের জন্য আবেদন করতে পারছিলেন না। এ পরিপ্রেক্ষিতে নানা আলোচনার মাধ্যমে সম্প্রতি সৌদি আরব জানিয়েছিল, যারা সিনোফার্মের টিকা নিয়েছেন, তারাও ওমরাহ পালনে সৌদি আসতে পারবেন, যদি তারা ওই টিকার দুই ডোজের পাশাপাশি আগে বর্ণিত চারটি কোম্পানির কোনো একটির বুস্টার ডোজ নেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত বিশ্বের কোথাও এভাবে বুস্টার ডোজ দেওয়া হচ্ছিল না। কবে দেওয়া হবে, তেমন কোনো ঘোষণাও নেই।

সিনোফার্মের টিকা গ্রহণকারী বাংলাদেশিরা যাতে পবিত্র ওমরাহ পালন করতে পারেন, সেজন্য কূটনৈতিক তৎপরতা চালানোর জন্য সম্প্রতি অনুরোধ জানায় হজ এজেন্সিস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (হাব)। তারা এ ব্যাপারে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ও সৌদি রাষ্ট্রদূতের সহযোগিতা চান। এরপর সৌদি আরবের জেদ্দা থেকে বাংলাদেশ দূতাবাসের কাউন্সেলর (হজ) জহিরুল ইসলাম বলেছিলেন, সিনোফার্মের টিকার বিষয়ে সৌদি সরকারের কাছ থেকে শিগগিরই ইতিবাচক সিদ্ধান্ত আসতে পারে।

বাংলাদেশে বর্তমানে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা, ফাইজার-বায়োএনটেক, মডার্না ও সিনোফার্মের টিকা দেওয়া হচ্ছে।