পাবনার বেড়ায় ৯ম শ্রেণির এক ছাত্রীকে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ

Bera map
পাবনার বেড়ায় ৯ম শ্রেণির এক ছাত্রীকে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে রাশিদুল (২০) নামের এক যুবকের বিরুদ্ধে।
এ ব্যাপারে ধর্ষণের শিকার স্কুল ছাত্রীর মা বাদী হয়ে সোমবার উপজেলার আমিনপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এমএম তাজুল হুদা মামলার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, মেয়েটিকে মেডিক্যাল চেকআপের জন্য পাবনা জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। রাশিদুলকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।
ধর্ষণের শিকার মেয়েটির পরিবার ও স্থানীয়রা জানান, ওই ছাত্রী স্কুলে যাতায়াতের পথে বেশকিছুদিন ধরে পার্শ্ববর্তী শিবপুর গ্রামের সাগর হোসেনের ছেলে রাশিদুল প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। ৫/৬ মাস পার হলে এক পর্যায়ে মেয়েটি রাশিদুলের প্রেমের প্রস্তাবে রাজি হয়ে যায় এবং বাবা-মায়ের অগোচরে ছেলেটির সাথে মোবাইল ফোনে কথাবার্তাসহ বিভিন্ন জায়গায় ঘুরাঘুরি করতে থাকে। গত শনিবার (২১ জানুয়ারি) পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী ছাত্রীটি স্কুল থেকে ফেরার পথে রাশিদুল তার বোনের বাড়িতে নিয়ে যাবে বলে পার্শ্ববর্তী একটি পরিত্যক্ত বাড়িতে নিয়ে দু’একদিনের মধ্যেই তাকে বিয়ে করার প্রলোভন দেখিয়ে শারীরিক সম্পর্ক করে। এমনকি সে তার মোবাইল ফোনে মেয়েটির আপত্তিকর ছবি তোলে। পরের দিন মেয়েটি রাশিদুলকে বিয়ের জন্য চাপ দিলে সে বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানায়। পরে বাধ্য হয়ে মেয়েটি তাকে ধর্ষণ ও মোবাইল ফোনে ছবি তোলার বিষয়ে তার মাকে জানায়। ছাত্রীটির মা এ বিষয়ে রাশিদুলের পরিবারকে জানালে তারাও মেয়েটিকে রাশিদুলের সাথে বিয়ে দিতে আপত্তি জানায়। বরং এ নিয়ে থানায় অভিযোগ করলে রাশিদুল সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে আপত্তিকর ছবিগুলো ছেড়ে দেবার ভয় দেখায়। এ ঘটনায় মেয়েটির মা বাদী হয়ে সোমবার বিকেলে আমিনপুর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন।