বাংলাদেশে বিনিয়োগ নিয়ে আসতে চায় কোরীয় দুই জায়ান্ট কোম্পানি

বাংলাদেশে মোটরগাড়ি শিল্প, জ্বালানি এবং অবকাঠামো নির্মাণ শিল্পে সম্পৃক্ত হতে চাইছে কোরিয়ার জায়ান্ট কোম্পানিগুলো। বিশ্বখ্যাত গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান হুন্দাই বাংলাদেশে গাড়ি নির্মাণ কারখানা স্থাপনের জন্য গত জানুয়ারিতে চুক্তি স্বাক্ষরের পর এবার আরও দুটি কোরীয় কোম্পানি বাংলাদেশে বিনিয়োগের আগ্রহ প্রকাশ করে সরকারের সংশ্লিষ্ট দফতরগুলোর সঙ্গে যোগাযোগ করেছে। এরমধ্যে আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন কোরীয় প্রতিষ্ঠান হানওয়া ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড কনস্ট্রাকশন করপোরেশন বাংলাদেশের অবকাঠামো উন্নয়নে আন্তর্জাতিক কনট্রাক্টর হিসেবে কাজ করার আগ্রহ দেখিয়েছে। এ ছাড়া জিওনজি সিইএস নামে কোরীয় আরেক জায়ান্ট কোম্পানি বাংলাদেশে জ্বালানি খাতে বিনিয়োগের আগ্রহ প্রকাশ করেছে। প্রতিষ্ঠান দুটোর বাংলাদেশে বিনিয়োগের আগ্রহের বিষয়টি সিউলে বাংলাদেশ দূতাবাস থেকে পাঠানো চিঠিতে        বাণিজ্য মন্ত্রণালয়কে অবহিত করেছেন কমার্শিয়াল কাউন্সিলর ড. মো. মিজানুর রহমান। সরকারের সূত্রগুলো জানায়, কোরীয় এই শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলো বাংলাদেশে বড় বিনিয়োগে আগ্রহ প্রকাশ করে এরই মধ্যে সিউলে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতবাসের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে। এ ছাড়া বাংলাদেশ সরকারের সংশ্লিষ্ট দফতরগুলোর সঙ্গেও তারা আলোচনা শুরু করেছে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান, কোরীয় কোম্পানিগুলোর বিনিয়োগ বাংলাদেশে লাভজনক ও নির্বিঘ্ন হওয়ার কারণে এখন জায়ান্ট কোম্পানিগুলোও বাংলাদেশে বিনিয়োগ নিয়ে আসতে চাইছে। প্রস্তাবিত কোম্পানি দুটোর বিনিয়োগের আগ্রহ সম্বলিত চিঠি পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। সূত্র জানায়, দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিষ্ঠান জিওনজি সিইএস বাংলাদেশে একটি এলপিজি প্লান্ট স্থাপনের আগ্রহ প্রকাশ করেছে। এ লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠানটি বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিডা) ফরমও পূরণ করেছে। আরেক প্রতিষ্ঠান হানওয়া ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড কনস্ট্রাকশন করপোরেশন বাংলাদেশে অবকাঠামো নির্মাণে যুক্ত হওয়ার আগ্রহ দেখিয়ে বাংলাদেশ দূতাবাসের সঙ্গে বৈঠক করেছে। প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তারা দূতাবাসের কর্মীদের জানিয়েছেন, তারা দেশটির সপ্তম বৃহত্তম কোম্পানি যেটি অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক নির্মাণ খাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, কোরিয়া বাংলাদেশে ষষ্ঠ বৃহৎ বিনিয়োগকারী এবং তাদের বিনিয়োগের পরিমাণ প্রায় ১ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলার। ঢাকায় অবস্থিত কোরিয়ান দূতাবাসের তথ্যমতে অন্তত ২০০ কোম্পানি এদেশে বিনিয়োগ করেছে। বাংলাদেশে কোরিয়া কোম্পানির বিনিয়োগ আকষর্ণে কোরিয়ান ইপিজেডও রয়েছে। তৈরি পোশাকের পাশাপাশি বর্তমানে অবকাঠামো উন্নয়ন, ইলেকট্রনিকস এবং অটোমোবাইল খাতে কোরিয়া বিনিয়োগ করছে। এ ছাড়া বঙ্গবন্ধু মেডিকেল ইউনিভার্সিটি ও হসপিটাল নির্মাণে যৌথ উদ্যোগে পরিকল্পনা করা হচ্ছে। বাংলাদেশের মেগা প্রকল্পেও বিনিয়োগ করতে আগ্রহী কোরীয় কোম্পানিগুলো। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, বাংলাদেশ ও দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্প্রসারণের লক্ষ্যে গত এপ্রিলে সিউলে বাংলাদেশ দূতাবাস একটি অনুষ্ঠান করে। ওই অনুষ্ঠানে দেশটির গাংনিওয়ং চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির ব্যবসায়িক নেতাদের সঙ্গে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত বৈঠক করেন। সেখানে বাংলাদেশের খাদ্য প্রক্রিয়াজাত শিল্পে বিনিয়োগ এবং প্রযুক্তি হস্তান্তরেও আগ্রহ প্রকাশ করেছে কোরীয় উদ্যোক্তারা। দেশটির শিল্পোদ্যোক্তারা জানান, তারা দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় তাদের বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্প্রসারণের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছেন। বৈঠকে রাষ্ট্রদূত আবিদা ইসলাম গাজীপুরে কোরিয়ার হুন্দাই কোম্পানির গাড়ি নির্মাণ কারখানা স্থাপনের বিষয়টি তুলে ধরে চেম্বারের মোটর পার্টস ব্যবসায়ীদের বাংলাদেশে বিনিয়োগের আহ্বান জানান। চেম্বারের প্রেসিডেন্ট কোরিয়ান শিল্পোদ্যোক্তা কিম হিয়ং এ বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ করেন এবং তার সংগঠনের মোটর পার্টস নির্মাণকারী সদস্যদের বাংলাদেশে বিনিয়োগের বিষয়টি তুলে ধরবেন বলে জানান।